News

ঘন কুয়াশা-হিমেল হাওয়ায় জনজীবন বিপর্যস্ত

দিনাজপুরে ঘন কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে উত্তরাঞ্চলে। সড়ক-মহাসড়কে সব ধরনের যানবাহন হেডলাইট জ্বালিয়ে ধীরগতিতে চলাচল করছে। কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় জনজীবন থমকে দাঁড়িয়েছে। রাস্তায় মানুষের চলাচল একবারেই সীমিত। সবচেয়ে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন-আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ। বিশেষ করে দিনমজুর আর রিকশাচালকরা ক্ষতির মুখে পড়েছেন ।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, আজ সোমবার (১১ ডিসেম্বর) দিনাজপুরে সকাল ৬টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। চলতি সপ্তাহে জেলায় স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এ মাসে এই জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলে জানা গেছে।

দিনাজপুর-পার্বতীপুর রোডের মাইক্রবাস চালক লাল মিয়া বলেন, সন্ধ্যা থেকে ঘনকুয়াশয় ঢাকা পড়ছে সড়ক-মহাসড়ক। ১০ থেকে ১৫ ফুট দূরত্বের মধ্যে বোঝা যায় না, সামনে থেকে গাড়ি আসছে কি না। এজন্য ফুল হেড লাইট জ্বালিয়ে ধীরে ধীরে গাড়ি চালাতে হচ্ছে। না হলে যে কোনও সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

অটোচালক সুজন ইসলাম বলেন, ‘কয়দিন আগে টানা দুই দিন ধরে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি, তারপর থেকে ঘনকুয়াশা আর ঠান্ডা বাতাসে মানুষ ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছে না। সকাল সাতটা পার হয়ে গেল, এখনও একটা ভাড়া পাইনি। আগে দিনে সাত থেকে আটশ টাকা আয় হতো অটো চালিয়ে। এখন চার থেকে পাঁচশ টাকা আয় হয় না। খুব কষ্টে দিন যাচ্ছে, একদিকে আয় কম অন্যদিকে বাজারের সব জিনিসের দাম বেশি।’

ধানকাটা শ্রমিক শহিদুল ইসলাম জানান, বৃষ্টির পর থেকে শীতের তীব্রতা বাড়ছে। কয়েকদিন থেকে সূর্যের দেখা মেলেনি, ঘুন কুয়াশা আর ঠান্ডা বাতাসের জন্য খেতে ধান কটাতে যেতে পারছি না।

এদিকে ঠান্ডা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শীতজনিত রোগে আক্রান্তের হার বেড়েছে। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক মানুষ বেশি পরিমাণে আক্রান্ত হচ্ছেন। হাসপাতালগুলোতে শীতজনিত রোগে আক্রান্তের চাপ বেড়েছে।

জেলা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, সোমবার দিনাজপুরে সকাল ৬টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় বাতাসে আর্দ্রতা ছিল ৯৯ ভাগ। তবে দিন দিন আরও তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া চলতি মাসে এই জেলার ওপর দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমপি

Shihab

Bangla Tech Blogger

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page